মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
সত্য প্রকাশে অপ্রতিরোধ্য দৈনিক সময়ের কণ্ঠ ডটকমে আপনাকে স্বাগতম  

সিরাজগঞ্জে এএসিওদের গ্রাম আদালত কার্যক্রমে সম্পৃক্তকরণ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ।

আজিজুর রহমান মুন্না, সিরাজগঞ্জ ঃ
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২০, ১:৫৯ অপরাহ্ন

সিরাজগঞ্জে হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর (এএসিও)দের গ্রাম আদালত কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করণ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে । “অল্প সময়ে স্বল্প খরচে দ্রুত বিচার পেতে চলো যাই গ্রাম আদালতে ” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয় করণ ২য় পর্যায়ে প্রকল্প স্থানীয় সরকার বিভাগ স্থানীয় সরকার , পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে
গতকাল মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসকের শহীদ শামসুদ্দীন সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।কর্মশালায় অতিরিক্ত সচিব মরন কুমার চক্রবর্তী জুম এ্যাপের যুক্ত হন। এতে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ড.ফারুক আহাম্মদ । বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাখেন স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন।

প্রধান অতিথি বলেন, গ্রাম আদালত সম্পর্কে ব্যাপক জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
গ্রাম আদালতে জনগণ যেন হয়রানি না হয় এবং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, মেম্বারদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে সাংবাদিকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের সমাজে কি কি সমস্যা আছে এগুলো নির্ধারণ করে সমাধানের জন্য চেষ্টা করতে হবে।

মানুষের মধ্যে বিশ্বাসের জায়গাটা তৈরি করতে হবে। মানুষ যেন গ্রাম আদালতের উপর আস্থা আনতে পারে। এ ব্যাপারগুলো যখন পত্রিকায় ছাপানো হবে তখন জনগণ জানবে এবং এর সঙ্গে সম্পৃক্ত হবে। গ্রামে অনেকগুলো বিষয় থাকে যেগুলো আমলযোগ্য অপরাধ নয়, সেগুলো সমাধানের জন্যই গ্রাম আদালত। গ্রাম আদালতে মামলা না করে শহরে এসে মামলা করলে বিচারপ্রার্থী যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তেমনি যিনি মামলা করেন তিনিও ক্ষতির শিকার হন। সেজন্যই গ্রাম আদালত তৈরি করা হয়েছে।

আমাদের সকলকে সম্মিলিতভাবে গ্রাম আদালতের সাফল্যের এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। তার জন্যে আমাদের সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। বিশেষ করে ইউনিয়ন পরিষদের হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটরদেরকে যেহেতু সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক গ্রাম আদালতের পেশকারের দায়িত্বসহ মামলার নথি সংরক্ষণের দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে, সে কারণে আমি মনে করি প্রকল্পের আওতায় নিয়োগকৃত গ্রাম আদালত সহকারীদেরকে প্রত্যাহার করে নিলেও এবং প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও সিরাজগঞ্জ জেলার গ্রাম আদালতের সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে।আরও বলেন
গ্রাম আদালত যেসব বিরােধ নিষ্পত্তি করতে পারে চুরি, ঝগড়া-বিবাদ, কলহ বা মারামারি, দাঙ্গা, প্রতারণা, ভয়ভীতি দেখানাে বা হুমকি দেয়া, কোনাে নারীর শালীনতাকে অমর্যাদা বা অপমানের উদ্দেশ্যে কথা বলা, উত্যক্ত করা গচ্ছিত কোনাে মূল্যবান সম্পত্তি আত্মসাৎ করা, পাওনা টাকা আদায়, স্থাবর সম্পত্তির দখল ও পুনরুদ্ধার, অস্থাবর সম্পত্তি উদ্ধার বা তার মূল্য আদায়, কোনাে অস্থাবর সম্পত্তির জবর দখল বা ক্ষতি করার জন্য ক্ষতিপূরণ আদায় গবাদিপশুর অনধিকার প্রবেশের কারণে ক্ষতিপূরণ, গবাদিপশু মেরে ফেলা বা গবাদিপশুর ক্ষতি করা • কৃষি শ্রমিকের পরিশােধযােগ্য মজুরি ও ক্ষতিপূরণ আদায় ইত্যাদি।

বাংলাদেশ গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের সিরাজগঞ্জ ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর (ডিএফ) ইউএনডিপি একে এম. নিয়ামুল হক এবং ডিসিও – ইএসডিও মোঃ মাসুদ রানা’র যৌথ পরিচালনায় কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন বক্তব্য রাখেন,সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আনোয়ার পারভেজ, বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.আনিসুর রহমান , তাড়াশ উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোঃ রেজাউল করিম , রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাজিবুল আলম প্রমূখ।

কর্মশালায় গ্রাম আদালত টেকসইকরণে হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটারদের দায়িত্ব, গ্রাম আদালত কার্যক্রম হস্তান্তর ও সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের করণীয় ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা উপস্থাপন ও আলোচনা করা হয়। গ্রাম আদালত কার্যক্রম হস্তাস্তর প্রক্রিয়া পরিচালনায় লব্ধ অভিজ্ঞতা, বাধাসমূহ ও করণীয় বিষয়ে দিক-নির্দেশনা দেয়া হয়।

এসময় শিয়ালকোল ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল মান্নান, বহুলী ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন সরকার , ঘুড়কা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জিল্লুর রহমান , পাঙ্গাসী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম, নলকা ইউপি আব্দুল জব্বার সহ জেলার ১৭টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান,১৭ জন হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, ২ জন গ্রাম আদালত সহকারী, সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার শাখার কর্মকর্তাসহ অংশগ্রহণ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ.....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর